শনিবার   ২৪ জুলাই ২০২১   শ্রাবণ ৯ ১৪২৮   ১৪ জ্বিলহজ্জ ১৪৪২

পরিক্ষামূলক প্রচার

৫৯১

যশোরে সাঁইজি হত্যায় জড়িত স্ত্রী ও পরকীয়া প্রেমিক: সিআইডি

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ৯ জানুয়ারি ২০২০  

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

পরকীয়া প্রেমে বাধা দেওয়ায় যশোরে ভেকুটিয়া গ্রামের লালন আখড়াবাড়ীর প্রতিষ্ঠাতা ও সাধক আলী আকবর সাইজীকে শ্বাসরোধে করে হত্যা করেছে দ্বিতীয় স্ত্রী রিজিয়া খাতুন ও তার পরকীয়া প্রেমিক পরিতোষ বাউল। 

আটক আসামিদের দেওয়া তথ্য যাচাই-বাছাই শেষে আদালতে দাখিল চার্জশিটে তদন্তকারী সিআইডি এ তথ্য উল্লেখ করেছেন।

যশোর সিআইডি পুলিশের এসআই আব্দুল লতিফ আলোচিত আলী আকবার সাইজী হত্যা মামলায় দুইজনকে অভিযুক্ত করে আদালতে ৫ জানুয়ারি চার্জশিট দাখিল করেছেন। মামলায় আটক দুইজনকে অব্যাহতির সুপারিশ করা হয়েছে। 

সাইজীর প্রথম স্ত্রী সালেহা বেগম দুইজনের নাম উল্লেখসহ অপরিচিত ৫/৬ জনকে আসামি করে হত্যা মামলা করেন। মামলাটি প্রথমে থানা পুলিশ পরে সিআইডি পুলিশ তদন্তের দায়িত্ব পায়।

মামলায় সালেহা উল্লেখ করেন, রিজিয়াকে ২০ শতক জমি লিখে দিয়ে সাইজী তাকে বিয়ে করে যশোর সদর উপজেলার বড় ভেকুটিয়া মুক্তেশ্বরী নদীর পাড়ে বাড়ি করে বসবাস শুরু করেন। এ বাড়িতে প্রতিদিন লালন ভক্তদের নিয়ে তিনি আসর বসাতেন। এসবের দেখাশুনা করত তার প্রধান শিষ্য পরিতোষ বাউল। পরিতোষের সঙ্গে রিজিয়ার পরকীয়া সম্পর্কের কথা জানতে পেরে সাইজী তাদের কথা বলতে নিষেধ করেন। এ নিয়ে তাদের মধ্যে বিরোধ চলছিল।

২০১৭ সালের ১৫ জুলাই রাতে খাবার খেয়ে সাইজী ঘরে ঘুমিয়ে পড়েন। পরদিন সকালে সাইজীকে ঘরে না পেয়ে তার দ্বিতীয় স্ত্রী রিজিয়া বিষয়টি তার মেয়ে ও জামাইকে জানায়। এ ব্যাপারে মেয়ে জামাই আসাদুল ইসলাম কোতোয়ালি থানায় একটি জিডি করেন। ১৬ জুলাই রাতে ফায়ার সার্ভিসের সহায়তায় মুক্তেশ্বরী নদী থেকে সাইজীর লাশ উদ্ধার করা হয়।

চার্জশিটে তদন্তকারী কর্মকর্তা বলেছেন, সাইজীর দ্বিতীয় স্ত্রী রিজিয়া তার স্বামীর প্রধান শিষ্য পরিতোষ বাউলের সঙ্গে পরকীয়ায় জড়িয়ে পড়ে। সাইজী বিষয়টি বুঝতে পেরে তাদের দেখা ও কথাবার্তা বলতে নিষেধ করেন। সাইজীর বাড়ির জমির অর্ধেক দুই মেয়ে ও বাকিটুকু লালন আখড়ার নামে লিখে দেবেন বলে স্ত্রী রিজিয়াকে জানিয়েছিলেন। পরকীয়ায় বাধা এবং অন্যদের নামে জমি দিতে চাওয়ায় রিজিয়া ক্ষিপ্ত হয়ে সাইজীকে হত্যার পরিকল্পনা করেন। পরিকল্পনা অনুযায়ী সাইজী রাতে ঘুমিয়ে পড়লে পরিতোষ তার ঘরে ঢুকে সাইজীর মুখে বালিশ চাপা দেয় এবং স্ত্রী রিজিয়া দুই পা চেপে ধরে হত্যা করে। এরপর তারা দুইজন সাইজীর লাশ নদীর পাড়ে নিয়ে রশি দিয়ে গলায় কলস বেঁধে নদীর শেওলার মধ্যে লুকিয়ে রেখে দিয়েছিল।

যশোর সিআইডি পুলিশের এসআই আব্দুল লতিফ জানান, পরকীয়ায় বাধা দেওয়ায় সাইজীকে হত্যা করা হয়েছে ।


 

এই বিভাগের আরো খবর